Class 9 Model Activity Task (Compilation) History Part 8

Class 9 Model Activity Task (Compilation) History Part 8: All West Bengal Class 6 Students can find here Final Model Activity Task or Combined Compilation Part 8 here. This Model Activity Compilation will depend on your passing for the next class Model Activity Task Class 9 History Part 8,  মডেল অ্যাক্টিভিটি টাস্ক Class 9 Part 8 ইতিহাস।

Class 9 Model Activity Task (Compilation) History Part 8

Class 9 Model Activity Task (Compilation) History Part 8:

 

ইতিহাস

নবম শ্রেণি

পূর্ণমান:  ৫০ 

 

১. ‘ক’ স্তম্ভের সাথে ‘খ’ স্তম্ভ মেলাও : ১ x ৪ = ৪

ক-স্তম্ভ   খ’ স্তম্ভ
১.১ ইয়ং ইতালি (ক) সাঁ সিমো
১.২ সেফটি ল্যাম্প (খ) জোসেফ ম্যাৎসিনি
১.৩ ইউরোপীয় সমাজতন্ত্র (গ) বিসমার্ক
১.৪ রক্ত ও লৌহ নীতি (ঘ) হামফ্রি ডেভি

উত্তরঃ

ক-স্তম্ভ   ‘খ’ স্তম্ভ
১.১ ইয়ং ইতালি (খ) জোসেফ  ম্যাৎসিনি
১.২ সেফটি ল্যাম্প (ঘ) হামফ্রি  ডেভি
১.৩ ইউরোপীয় সমাজতন্ত্র (ক) সাঁ  সিমো
১.৪ রক্ত ও লৌহ নীতি (গ) বিসমার্ক

 

২. সত্য বা মিথ্যা নির্ণয় করো : ১ x ৪ = ৪

 

২.১ ফ্রান্সে দ্বিতীয় প্রজাতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হয় ১৮৪৮ খ্রিস্টাব্দে।

উত্তরঃ সত্য

২.২ শিল্প বিপ্লবের সময় ইংল্যান্ড বিশ্বের কারখানা হিসাবে পরিচিতি পায়।

উত্তরঃ সত্য

২.৩ হিটলারের ভাষায় ইতালি ছিল- -‘একটি ভৌগোলিক সংজ্ঞা মাত্র।

উত্তরঃ মিথ্যা

২.৪ এড্রিয়ানোপলের সন্ধি স্বাক্ষরিত হয়েছিল রাশিয়া ও তুরস্কের মধ্যে।

উত্তরঃ সত্য

 

৩. সঠিক উত্তরটি নির্বাচন করো : ১ x ৪ = ৪

 

৩.১ ফরাসি বিপ্লবের সময় ফ্রান্সের রাজা ছিলেন (চতুর্দশ লুই/পঞ্চদশ লুই/ষোড়শ লুই/নেপোলিয়ন)।

উত্তরঃ ষোড়শ লুই

৩.২ ‘কাদিদ’ নামক গ্রন্থটি রচনা করেছিলেন (রুশো/ভলতেয়ার/মস্তেস্ক/দিদেবো)।

উত্তরঃ ভলতেয়ার

৩.৩ ফ্রান্সকে ‘ভ্রান্ত অর্থনীতির যাদুঘর’ বলে মন্তব্য করেছিলেন। _(নেপোলিয়ন/রোবসপিয়ের/মিরাবো/অ্যাডাম স্মিথ)।

উত্তরঃ অ্যাডাম স্মিথ ।

৩.৪ ১৮৬১ খ্রিঃ ‘মুক্তির ঘোষণাপত্র দ্বারা ভূমিদাস প্রথা উচ্ছেদ হয়েছিল (রাশিয়াতে/ফ্রান্সে/প্রশিয়াতে/অস্ট্রিয়াতে)।

উত্তরঃ রাশিয়াতে

 

Read also: 

Class 9 English Model Activity Compilation Part 8 Solutions

 

৪. দুটি বা তিনটি বাক্যে নীচের প্রশ্নগুলির উত্তর দাও : ২ x ৫ = ১০

 

৪.১ কারা ‘ইনটেনডেন্ট’ নামে পরিচিত ছিলেন?

উত্তরঃ ফ্রান্সের প্রাদেশিক শাসনকর্তা ইনটেনডেন্ট নামে পরিচিত ছিলেন।  প্রাক বিপ্লব সময়ে এরা  ফ্রান্সের রাজস্ব আদায়ের ক্ষমতার অধিকারী ছিলেন। ইনটেনডেন্ট অত্যাচার এমন পর্যায়ে পৌঁছে ছিলযে জনগণ এদের বলতেন  ‘অর্থলোলুপ নেকড়ে’।

৪.২ লিজিয়ন অব অনার’ কী?

উত্তরঃ  লিজিয়ন অব অনার হলাে নেপােলিয়ন কর্তৃক প্রবর্তিত এক বিশেষ সম্মান বা উপাধি।নেপােলিয়নের সামাজিক সংস্কারের একটি উল্লেখযােগ্য দিক ছিল লিজিয়ন অব অনার’ প্রবর্তন। বংশগত মর্যাদার পরিবর্তে প্রকৃত মর্যাদা দেওয়ার জন্য , 1802 খ্রিস্টাব্দে তিনি যে রাষ্ট্রীয় সম্মান প্রদান -এর উদ্যোগ নিয়েছিলেন , তা’লিজিয়ন অব অনার’ নামে পরিচিত এবং বর্তমানেও এই সম্মান প্রদান করা হয়।

৪.৩ অর্ডারস ইন কাউন্সিল’ কী?

উত্তরঃ 1806 সালে নেপােলিয়ন বার্লিন ডিক্রি ঘােষণা করলে, তার জবাবে ইংল্যান্ড 1807 সালের 11 নভেম্বর , একটি ঘােষণায় জানান যে , যদি ইউরােপের কোনাে দেশ পণ্যবাহী জাহাজ ফ্রান্স বা মিত্রদেশগুলাের বন্দরে প্রবেশ করতে চায়, তাহলে তাদের ইংল্যান্ডকে শুল্ক দিতে হবে। এই ঘােষণা অস্বীকার করলে , সেই সব দেশের পণ্য বহনকারী জাহাজকে বাজেয়াপ্ত করা হবে। এই ঘােষণা ‘অর্ডারস ইন কাউন্সিল’ নামে পরিচিত।

8.8 রিসর্জিমেন্টো কী?

উত্তরঃ ‘বিসর্জিমেন্টো’ কথার অর্থ হল – পুনর্জাগরণ। বিভিন্ন কারণে ইতালিবাসীদের মনে অখন্ড জাতীয়তাবাদের ধারণার জন্ম হয়েছিল যাকে রিসর্জিমেন্টো বলা হয়। কান্ত , ক্যাপ্পেনি প্রমূখ ঐতিহাসিক তাদের রচনাবলীর দ্বারা ইতালির জাতীয় চেতনার প্রসার ঘটিয়েছিলেন
এর ফলে ইতালিবাসী তাদের অতীত গৌরব সম্পর্কে সচেতন হয়ে উঠেছিল।

৪.৫ ‘ঘেটো’ কাকে বলা হত?

উত্তরঃ শিল্পবিপ্লবের পরে ইংল্যান্ডের নতুন শিল্প শহরগুলিতে , গ্রাম থেকে আসা শ্রমিকেরা শহরের এক প্রান্তে অস্বাস্থ্যকর এবং ঘিঞ্জি পরিবেশে বাস করতে বাধ্য হতাে। এই সমস্ত শ্রমিক ও দরিদ্র মানুষদের বসবাসের জায়গাকে ঘেটো বলা হত।

এই সমস্ত মানুষদের অর্থনৈতিক অবস্থা দারিদ্র্যসীমার নিচে ছিল এবং এরা সমাজের
অবহেলিত, বঞ্চিত এবং নিপীড়িত মানুষ ছিল।

 

৫. সাত বা আটটি বাক্যে উত্তর দাও : ৪ x ৫ = ২০

৫.১ কাকে ‘মুক্তিদাতা জার” বলা হয় এবং কেন?

উত্তরঃ রাশিয়ার জার দ্বিতীয় আলেকজান্ডার কে ‘মুক্তিদাতা জার’ বলা হয় |

‘মুক্তিদাতা জার’ বলার কারণ :

ভূমিদাস প্রথা বিলােপের সিদ্ধান্ত গ্রহণ জার দ্বিতীয় আলেকজান্ডার সিংহাসনে আরােহন করেই অনুধাবন করেছিলেন যে, রাশিয়ার পিছিয়ে পড়ার পেছনে একমাত্র ভূমিদাস প্রথাই দায়ী। আইন অনুসারে ভূমিদাসরা মালিকের ব্যক্তিগত সম্পত্তি ছিলেন, মালিকরা তাদের নিলামে বিক্রি করলে অথবা শারীরিক নির্যাতন করলে রাষ্ট্র তাদের বাধা দিত না এবং ভূমিদাসরা বংশানুক্রমে কাজ করতাে। এসব কারণে দ্বিতীয় আলেকজান্ডার ভূমিদাস প্রথা বিলােপের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছিলেন।

ভূমিদাস প্রথা বিলােপের ঘােষণাপত্র :

1861 সালের 19 শে ফেব্রুয়ারি মুক্তির ঘােষণা দ্বারা জঘন্য দাস প্রথার উচ্ছেদ সাধন করেন ,এই ঘােষণা অনুযায়ী

(i) ভূমিদাসরা দাসত্ব থেকে মুক্তি পেয়েছিল।
(ii) ভূমিদাস নাগরিক অধিকার লাভ করেছিল।
(iii) জমিদারদের ভূমির একাংশ ভূমিদাসরা পেয়েছিল এবং কৃষকরা জীবিকা নির্বাহের সুযােগ পেয়েছিল।
(iv) জমিদাররা জমির জন্য ক্ষতিপূরণ সরকার কাছ থেকে পেয়েছিল।
(v) কৃষকেরা চার বছরের কিস্তিতে পরিশােধ করত।

 

৫.২ টীকা লেখো: কোড ‘নেপোলিয়ন’

উত্তরঃ ফরাসি সম্রাট নেপােলিয়ন বােনাপার্টের সংস্কার কর্মসূচির মধ্যে সর্বাপেক্ষা উল্লেখযােগ্য গুরুত্বপূর্ণ হলাে কোড নেপােলিয়ন বা আইনবিধির প্রবর্তন। তার শাসনকালের পূর্বে ফ্রান্সের নানাস্থানে নানা ধরনের বৈষম্যমূলক , পরস্পর বিরােধী আইন প্রচলিত ছিল। নেপােলিয়ন সমগ্র ফ্রান্সে এক ধরনের ব্যবস্থা চালু করেছিলেন , ফ্রান্সের আইন প্রবর্তনের উদ্দেশ্যে 4 জন বিশিষ্ট আইনজীবী পরিষদ গঠন করেন। এই পরিষদের প্রচেষ্টায় দীর্ঘ চার বছরের অক্লান্ত পরিশ্রমে আইনবিধি সংকলিত হয়েছিল, বা কোড নেপােলিয়ন নামে পরিচিত।

কোড নেপােলিয়ন – এর গুরুত্ব :
(i) কোড নেপােলিয়ন-এর ফলে একই আইন প্রবর্তিত হয়েছিল
(ii) বিপ্লবের আদর্শকে রক্ষা করা সম্ভব হয়েছিল ,
(iii) ফরাসি সমাজের বাইবেল হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছিল।

নেপােলিয়ন-এর ফলাফল :
(i) কোড নেপােলিয়ন-এর মাধ্যমে নেপােলিয়ন বিপ্লবের আদর্শ বাস্তবায়িত করতে সচেষ্ট হয়েছিলেন।
(ii) এই আইন সংহিতা কেবল ফ্রান্সেই নয় ফ্রান্সের সীমানা ছাড়িয়ে ইউরােপের বিভিন্ন রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি পেয়েছিল।
(iii) এই আইনের মাধ্যমে সকল মানুষের সমান অধিকার প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব না হলেও এই বিষয়ে আন্তরিক প্রয়াস লক্ষ্য করা গিয়েছিল।

৫.৩ হিটলারের উত্থানের পশ্চাতে কোন কারণগুলি ছিল?

উত্তরঃহিটলারের উত্থান এর পশ্চাতের কারণগুলি নিম্নরূপ :
প্রথম বিশ্বযুদ্ধের শেষে জার্মানিতে ‘সােস্যালিস্ট রিপাবলিকান দল’ রাজতন্ত্রের পরিবর্তে , প্রজাতান্ত্রিক সরকার (ভাইমার প্রজাতন্ত্র) প্রতিষ্ঠা করে (9 নভেম্বর ,1918 খ্রি:), এই সরকারের আমলেই হিটলারের নেতৃত্বে জার্মানিতে নাৎসি দল ক্ষমতা দখল করেছিল।

ভাইমার প্রজাতন্ত্রের ব্যর্থতা : ভাইমার প্রজাতান্ত্রিক সরকার মিত্রপক্ষের ভার্সাই চুক্তির শর্তগুলি
মেনে নিয়ে 660 কোটি পাউন্ড ক্ষতিপূরণ দিতে রাজি হয়। সরকারের এই সিদ্ধান্তকে
হিটলার চরম ব্যর্থতা বলে প্রচার করেন , এভাবেই তার নাৎসি দলের উত্থানের পথ প্রশস্ত করেন।

ভার্সাই সন্ধির শর্ত অনুযায়ী , যুদ্ধজনিত কারণে জার্মানির উপর এক বিশাল অঙ্কের আর্থিক ক্ষতিপূরণের বােঝা চাপিয়ে দেওয়া হয়েছিল। ক্ষতিপূরণের এই বিশাল অর্থের যােগানের
লক্ষ্যে জার্মানিতে ভাইমার প্রজাতান্ত্রিক সরকার করের হার বাড়িয়েছিল , এর ফলে মুদ্রাস্ফীতি ও নিত্যপ্রয়ােজনীয় জিনিসপত্রের দাম বৃদ্ধি পেয়েছিল , যার পরিণামে জার্মানভাষী আর্থিক সংকটের মধ্যে পড়েছিল , আর্থিক সংকট মােচনের আশ্বাস দিয়ে , হিটলারের নাৎসি দল জার্মানিতে ক্ষমতা দখল করেছিল।

রাজনৈতিক অস্থিরতা : ভাইমার প্রজাতন্ত্রের আমলে জার্মানিতে রাজনৈতিক অস্থিরতা দেখা গিয়েছিল, জার্মানিতে মােট 15 টি মন্ত্রিসভা ক্ষমতায় এসেছিল। রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার আশ্বাস দিয়ে জার্মানিতে হিটলারের নাৎসি দল ক্ষমতা লাভ করেছিল।

৫.৪ ‘এমস টেলিগ্রাম কী?

উত্তরঃ  870 সালের জুলাই মাসে , ফরাসি রাজদূত কাউন্ট বেনেডিটি এমস নামক স্থানে
প্রাশিয়ার রাজা ফ্রেডরিক উইলিয়ামের সাথে সাক্ষাৎ করেন। তিনি স্পেনের সিংহাসনে লিওপােল্ডকে না বসানাের প্রতিশ্রুতি চান,  রাজা সাক্ষাৎকারের বিষয়ে টেলিগ্রাম করে বিসমার্ককে জানিয়েছিলেন। বিসমার্ক টেলিগ্রামের কিছু অংশ প্রকাশ করেন , যাতে মনে হয় তিনি অপমানিত হয়েছিলেন। এই ঘটনার কারণে ফ্রান্স এবং রাশিয়ার মধ্যে
যুদ্ধ অনিবার্য হয় । এ ঘটনাটি  এমস টেলিগ্রাম নামে পরিচিত।

এমস টেলিগ্রাম এর পটভূমিঃ  স্পেনের সিংহাসন নিয়ে বিরোধের ঘটনাকে কেন্দ্র করে এমস টেলিগ্রাম এর পটভূমি রচিত হয়েছিল।

এমস টেলিগ্রাম এর ফলাফলঃ

প্রাশিয়ার বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণাঃ  এই ঘটনার কথা জানতে পেরে ফরাসি জনগণ বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে,  ফরাসি সম্রাট তৃতীয় নেপোলিয়ন এই অপমানের প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য রাশিয়ার বিরুদ্ধে 1871 খ্রিস্টাব্দে 15 জুলাই  যুদ্ধ ঘোষণা করে।

ফ্রান্স ও রাশিয়ার যুদ্ধঃ  অপ্রস্তুত ফ্রান্স হঠাৎ যুদ্ধ ঘোষণা করায় প্রাশিয়ার কাছে চূড়ান্তভাবে পরাজিত হয়।

৬. সাত বা আটটি বাক্যে উত্তর দাও : ৮ x ১ = ৮

জার্মানির ঐক্য আন্দোলনে বিসমার্কের ভূমিকার উল্লেখ করো।

উত্তর: ফরাসি বিপ্লবের পূর্বে তথা নেপােলিয়নের জার্মানি জয়ের আগে , জার্মানি প্রায় 300 টি ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র রাজ্যে বিভক্ত ছিল। পরবর্তীকালে নেপােলিয়ন সেই রাজ্যগুলির পুনর্গঠন করেন এবং 300 টি রাজ্যকে 39 টি রাজ্যে বিভক্ত করে , কনফেডারেশন অফ দ্যা রাইন নামে একটি রাষ্ট্র গঠন করেন।পরবর্তীকালে বিসমার্ক – এর নেতৃত্বে জার্মানিতে ঐক্য সংগঠিত হয়েছিল।

রক্ত ও লৌহ নীতির প্রয়ােগ : বিসমার্কের সময় যুদ্ধের অনুকূল পরিস্থিতিকে কাজে লাগিয়ে , 1864 সাল থেকে 1870 সাল পর্যন্ত , ছয় বছরের মধ্যে তিনটি যুদ্ধের সাহায্যে
জার্মানির ঐক্য সংগঠিত হয়েছিল।

ডেনমার্কের সঙ্গে যুদ্ধঃ
বিসমার্কের সময় , যুদ্ধের পুনরুদ্ধারের জন্য বিসমার্ক অস্ট্রিয়াকে সঙ্গে নিয়ে ডেনমার্কের সঙ্গে 1864 খ্রিস্টাব্দে যুদ্ধ করেন এবং ডেনমার্ক পরাজিত হয়েছিল।

অস্ট্রিয়ার সঙ্গে যুদ্ধ :
গ্যাস্টিনের সন্ধি এমনভাবে করা হয়েছিল ,যাতে শীঘ্রই অস্ট্রিয়া ও প্রাশিয়ার মধ্যে যুদ্ধ বাঁধে , সেজন্য বিসমার্ক আগে থেকেই প্রস্তুত ছিলেন। স্যাডােয়ার যুদ্ধে অস্ট্রিয়াকে পরাজিত করে , ফলে উত্তর ও মধ্য জার্মানি থেকে অস্ট্রিয়ার প্রাধান্য দূর হয়।

এছাড়া , ফ্রান্সের সঙ্গে সেভানের যুদ্ধের ফলে ফ্রান্স পরাজিত হয়েছিল , এভাবেই বিসমার্কের ইতিবাচক নেতৃত্ব জার্মানির ঐক্য সম্পন্ন করেছিল এবং এই নবগঠিত জার্মানির রাজা হয়েছিলেন প্রথম উইলিয়াম।

অন্যান্য ক্লাসের মডেল অ্যাক্টিভিটি টাস্ক এখানে ক্লিক করুন
এই ব্লগের হোমপেজে যাওয়ার জন্য এখানে ক্লিক করুন
আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেল-এ যুক্ত হওয়ার জন্য
এখানে ক্লিক করুন

 

Updated: 23rd November 2021 — 7:05 pm

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Study Solve © 2021 Contact Us | 

   DMCA Policy

 

error: Content is protected !!